হিরো আলম

বর্তমানে বাংলাদেশের সবচেয়ে আলোচিত এবং সমালোচিত ব্যক্তি হলো হিরো আলম। বাংলাদেশ ভারতসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে হিরো আলমের ব্যাপক জনপ্রিয়তা আছে। প্রিয় পাঠক আজকের এই পোস্টে আলোচনা করা হবে হিরো আলমের জীবনী সম্পর্কে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক হিরো আলমের ব্যক্তিগত জীবন থেকে শুরু করে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড সকল কিছু।

Image

পেজ সূচিপত্রঃ হিরো আলম

পরিচিতি

আশরাফুল হোসেন আলম যিনি হিরো আলম নামে বেশি পরিচিত। তিনি একজন বাংলাদেশী মডেল, অভিনেতা, গায়ক এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচিত ব্যক্তি। হিরো আলম তার বেসুর গলায় গান গাওয়ার জন্য সবার মধ্যে বেশ আলোচিত এবং সমালোচিত। তার একটি নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে যেখানে তিনি তার বিভিন্ন কর্মকাণ্ড আপলোড দিয়ে থাকেন এবং যা খুব দ্রুত ভাইরাল হয়ে যায়। তার এই ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইবার এর সংখ্যা ১৬ লক্ষের বেশি

প্রারম্ভিক জীবন

আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম ১৯৮৫ সালের ২০ জানুয়ারি বাংলাদেশের উত্তরের জেলা বগুড়ার সদর উপজেলার এরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পারিবারিক সচ্ছলতা না থাকার কারণে তার পিতা-মাতা তাকে একই গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের পরিবারের কাছে পালক সন্তান হিসেবে হস্তান্তর করে। কিন্তু সেখানেও আর্থিক সচ্ছলতা না থাকার কারণে তিনি ৭ম শ্রেণীতে পড়া অবস্থাতেই জীবিকা নির্বাহ করার চেষ্টা করেন।

কর্মজীবন

হিরো আলম প্রথমে বগুড়ার একটি স্টেশনে পান-বিড়ি-সিগারেট এগুলো বিক্রি করতেন। এরপর তিনি তার নিজ গ্রাম এরুলিয়াতে সিডি বিক্রির ব্যবসা শুরু করেন। এরপর যখন সিডির প্রচলন কমে যায় তখন চালাক হিরো আলম স্যাটেলাইটের(ক্যাবল সংযোগ) ব্যবসা শুরু করেন। এই ব্যবসা চলাকালীন সময়ে হিরো আলম শখের বসে একটি মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেন এবং তার ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করেন। তার এই আপলোড করা মিউজিক ভিডিও ২০১৬ সালের দিকে বিশেষ করে ফেসবুকে বাংলাদেশের ব্যবহারকারীরা প্রচুর ট্রল এবং মিম তৈরি করা শুরু করলে খুব দ্রুতই তিনি ভাইরাল হয়ে যান। এরপর বাংলাদেশের কয়েকজন ক্রিকেট তারকা মুশফিকুর রহিম এবং তাসকিনদের সাথে সেলফি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করলে তার পরিচিতি আরো বেড়ে যায়।

এরপর বিবিসি হিন্দি, এনডিটিভি এবং ডেইলি-ভাস্কর সহ ভারতের প্রথম সারির গণমাধ্যমগুলো তাকে নিয়ে প্রতিবেদন করলে ভারতেও তার ব্যাপক পরিচিতি ছড়িয়ে পড়ে। ইয়াহু ইন্ডিয়ার এক জরিপে দেখা গেছে যে সেসময় ভারতের জনপ্রিয় অভিনেতা সালমান খানের চেয়েও হিরো আলমকে বেশিবার গুগলে সন্ধান করা হয়েছে।

২০১৭ সালের ১১ আগস্ট আশরাফুল আলম অভিনীত প্রথম ছবি “মার ছক্কা” মুক্তি পায়। ২০২০ সালের ১৬ই অক্টোবর হিরো আলমের দ্বিতীয় ছবি “সাহসী হিরো আলম” মুক্তি পায়। এরপর তিনি হঠাৎ গান গাওয়া শুরু করেন এবং তার প্রথম গান ছিল “বাবু খাইছো”

রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড

হিরো আলম শুরু থেকে নির্বাচনের প্রতি বেশ আগ্রহী ছিলেন। প্রথমদিকে তিনি তার নিজ গ্রামের স্থানীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন এবং একটিতে মাত্র ৭০ ভোটে হেরে যান। এরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিচিতি লাভ করার পর ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি থেকে বগুড়া-৪ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য মনোনয়ন কেনেন। কিন্তু জাতীয় পার্টি তাকে মনোনয়ন না দিলে বগুড়া-৪ আসনে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

এরপর ২০২২ সালের ১০ ডিসেম্বর বিএনপির সংসদ সদস্যরা বগুড়া-৪(কাহালু-নন্দীগ্রাম) এবং বগুড়া-৬(সদর) আসন থেকে পদত্যাগ করলে উপ-নির্বাচনের জন্য তফসিল ঘোষণা করা হয়। হিরো আলম উভয় আসন থেকেই স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন এবং বগুড়া-৪ আসনে মাত্র ৮৩৪ ভোটের ব্যবধানে হেরে যান।

এরপর ২০২৩ সালের ১৭ জুলাই ঢাকা-১৭ আসনের উপ-নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে তিনি পরাজিত হন। কিন্তু ভোট চলাকালীন সময়ে আওয়ামী লীগের কর্মীদের কাছে মারধরের শিকার হন এবং গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর তিনি ভোটে অনিয়মের অভিযোগ তোলেন এবং এই ভোট প্রত্যাখ্যান করেন। তার ওপর হামলার ঘটনায় জাতিসংঘ উদ্বেগ প্রকাশ করে। এছাড়াও, ইউরোপীয় ইউনিয়ন সহ বিশ্বের ১২ টি দেশের দূতাবাস তাকে নিয়ে যৌথ বিবৃতি প্রদান করে এবং গভীর নিন্দা জানাই এবং তার ওপর হামলার ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেফতারের জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে আবেদন জানাই।

ব্যক্তিগত জীবন

হিরো আলম তার ব্যাক্তি জীবনে সাবিহা আক্তার সুমির সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। আলম-সুমি এই দম্পতির আলো ও আঁখি নামে দুই মেয়ে এবং আবির নামে এক ছেলে রয়েছে। ব্যক্তিগত জীবনে আলমকে সফল বলা যেতেই পারে কারণ তিনি যে পরিস্থিতি থেকে উঠে এসেছেন তা সবার পক্ষে আসা সম্ভব না।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url